আরো সবুজ হয়েছে পৃথিবী গত ২০ বছরে, বলছে নাসা

Tuesday, February 12th, 2019

গত ২০ বছরে আরো সবুজ হয়েছে পৃথিবী, বলছে নাসা

ডেস্ক নিউজঃ চারিদিক থেকে একের পর এক আসছে বন ধ্বংসের খবর। অথচ একেবারে ভিন্ন তথ্য দিল মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা। তারা বলছে, আগের চেয়ে গত ২০ বছরে আরো সবুজ হয়েছে পৃথিবী। ধ্বংসের মধ্যে এই সৃষ্টি প্রক্রিয়ার নেতৃত্বে রয়েছে ভারত ও চীন।

উষ্ণায়নের জেরে যখন তিন/চার ফসলি জমিও উত্তরোত্তর হয়ে পড়ছে অনুর্বর, চাষের অযোগ্য, মাঠ শুকিয়ে কাঠ হয়ে যাচ্ছে, বদলে যাচ্ছে শীত, গ্রীষ্ম, বর্ষার মওসুম; তখন নাসা জানিয়েছে, বিশ্বের সবুজায়নে পথ দেখিয়েছে ভারত ও চীন।

নাসার ওই সাম্প্রতিক গবেষণায় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে এক ভারতীয় বংশোদ্ভূত বিজ্ঞানীর। বস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক রঙ্গ রামা মায়নেনি। গবেষণাপত্রটি বেরিয়েছে আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান-জার্নাল ‘নেচার-সাসটেইনেবিলিটি’-র হালের সংখ্যায়।

গ্রিন হাউস গ্যাস নির্গমন, উষ্ণায়নের জন্য যখন অভিযোগের আঙুল ওঠার বিরাম নেই মানুষের দিকে, তখন এই গবেষণা জানিয়েছে, বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল দু’টি দেশ, ভারত ও চীনের নাগরিকরাই আবারো প্রাণ ফিরিয়েছেন প্রকৃতির।

পরিবেশকে গাছপালাদের জন্য করে তুলেছেন আগের চেয়ে বেশি বাসযোগ্য। গাছপালাদের বেড়ে ওঠা, বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজন যে আবহাওয়া, পরিবেশ ও পুষ্টির, দক্ষিণ এশিয়ার দু’টি প্রতিবেশী দেশেই, গত দু’দশকে তা সবচেয়ে বেশি বেড়েছে।

তাতে এলাকা-পিছু শুধু যে গাছপালার সংখ্যা বা তাদের বসতির ঘনত্ব (পপুলেশন ডেনসিটি) বেড়েছে তাই নয়; বেড়েছে গাছে গাছে পাতার সংখ্যা। পাতারাও আগের চেয়ে হয়েছে অনেক বেশি হৃষ্টপুষ্ট। গত ২০ বছরে আরো সবুজ হয়ে উঠেছে ভারত ও চীন।

নাসা বলছে, পৃথিবীর স্থলভাগের যে পরিমাণ জমিতে চাষাবাদ হয়, তার মাত্র ৯ শতাংশ চাষের জমি রয়েছে ভারত ও চীনে। এত কম চাষযোগ্য জমি হাতে থাকা সত্ত্বেও, বিশ্বে গত ২০ বছরে যতটা সবুজায়ন হয়েছে, তার এক-তৃতীয়াংশই হয়েছে ভারত ও চীনে।

তাদের ভৌগোলিক এলাকার তারতম্য না ঘটলেও। যার মানে, ওই দু’টি প্রতিবেশী দেশে আরো অন্তত ১০ লাখ বর্গ কিলোমিটার এলাকা ভরে গেছে নতুন নতুন গাছ আর হৃষ্টপুষ্ট, ডালে ডালে আরো বেশি কাছাকাছি থাকা পাতায়।

উপগ্রহের পাঠানো এই তথ্যে অবাক না হওয়ার বিকল্প নেই। এত দিন জানা ছিল, জনবহুল দেশে মানুষের পদচিহ্নই উত্তরোত্তর আরো বেশি এলাকাজুড়ে ভূমিক্ষয়ে বড় ভূমিকা নিয়েছে, নিয়ে চলেছে।