ঔষধ থাকলেও বিতরণ হয়না, সেবা বঞ্চিত এলাকাবাসি

Tuesday, February 12th, 2019

 

সুমন খান (স্বরূপকাঠি, পিরোজপুর প্রতিনিধি) নেছারাবাদ, স্বরূপকাঠিতে কমিনিউটি ক্লিনিক গুলো চলছে নিজস্ব খেয়াল খুশিমত।

উপজেলার সোহাগদল ইউনিয়নের ইন্দেরহাট বাজার সংলগ্ন বেপারীস্থ কমিনিউটি ক্লিনিকটির প্রতি এলাকাবাসির ক্ষোভের যেন শেষ নেই। সরকারি এই প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা সগির হোসেনের চারিত্রিক ত্রুটিসহ রোগীদের সাথে বিরূপ আচারনে অতিস্ট সেবা নিতে আসা রোগীরা।

এলাবাসীর অভিযোগ, সগির অফিস টাইমে ক্লিনিক থেকে বাজারে চলে যায় নিজের খুশিমত। ক্লিনিকে থাকলেও মোবাইল নিয়ে ব্যস্ত থাকেন, রোগীদের ঔষধ দেয়াতো দূরের কথা সে মেয়েদের সাথে মোবাইলে ব্যস্ত সময় পার করায় ন্যাশনাল সার্ভিসের অপ্রশিক্ষিত কর্মী দিয়েই রোগীদের চিকিৎসা দেয়। সকাল ১০ থেকে অগনিতবার বাজারে যাওয়ায় রোগীরা চিকিৎসা সেবা নিতে এসেও চলে যেতে হচ্ছে এবং দুপুর ২ টা বাজলেই ক্লিনিক বন্ধ হয়ে যায়।

হাসানুরের স্ত্রীর অভিযোগ, সগির তাকে মেয়াদউর্ত্তীন্ন ঔষধ দিয়েছেন এবং পরের দিন সেটা আবার ফেরৎ নিয়েছেন।

আকলিমা বেগমের অভিযোগ, ক্লিনিকে পর্যাপ্ত ঔষধ সরবারহ থাকলেও মেম্বরসহ বিভিন্ন অযুহাতে ঔষধ দেয়া জয় না রোগীদের।

সরেজমিনে গতকাল ১২ ফেব্রুয়ারী দুপুর ২ টায় দেখা যায়, ক্লিনিকটি বন্ধ রয়েছে। একপর্যায় এলাকাবাসি ক্লিনিকে সদ্য যোগদান করা এসসিপি পপিকে ডেকে আনে এবং ক্লিনিকের ভেতরে খোলা অবস্থায় রাখা নতুন ঔষধের প্যাকেটগুলো কিন্তু রোগীদের বিদায় করা হয় ঔষধ নাই বলে।

এদিকে এলাকার লোকজন বলেন, আমাদেরকে ঔষদ দিয়ে দিল, কিন্তু বাড়িতে এসে দেখি এগুলো ডেট নাই।

এ ব্যাপারে এসসিপি পপি বলেন, আমি নতুন তাই ঔষধ খুলিনি সগির সাহেব ছুটিতে রয়েছেন। চিকিৎসা সেবায় এধরেণের লোক নারী রোগীদের জন্য হুমকি তাই অনতিবিলম্বে সগিরের ব্যপারে ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী এলাকাবাসির।

এ ব্যাপারে সিএসসিপি সগির জানায়, ফ্রি ঔষধ দিয়ে কারো মন রক্ষা করা যায় না। তিনি ৯ টা ৩টা ক্লিনিকে থাকেন বলে দাবী করলেও মোবাইলে প্রেমে ব্যস্ত থাকার বিষয়ে নিরুত্তর থাকেন।