হরিপুরে বিজিবির গুলিতে পথচারী ও শিশুসহ নিহত ৩, গুলিবিদ্ধ ২০

Tuesday, February 12th, 2019

আবু সালেহ মুসা হরিপুর, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে সীমান্ত রক্ষাকারী
বাহিনী বিজিবির গুলিতে পথচারী শিশুসহ ৩ জন নিহত ও ২০ জন গুরিবিদ্ধ
হয়েছে। ঘটনাটি ঘটে মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার ৩নং বকুয়া
ইউনিয়নের বরমপুর গ্রামে।
নিহতরা হলো- উপজেলার ৩নং বকুয়া ইউনিয়নের রুহিয়া গ্রামের নজরুল
ইসলাম ছেলে নবাব (৩০) (পথচারী), একই গ্রামের জহির উদ্দিনের ছেলে
সাদেক (৪০) (পথচারী) ঘটনাস্থলে মারা যায়। অপরদিকে গুলিবিদ্ধ হয়ে
চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর যাওয়ার পথে বহরমপুর গ্রামের নুরুল ইসলামের
ছেলে জয়নুল (১২) নিহত হয়।

গুলিবিদ্ধরা হলো- বহরমপুর গ্রামের বাবু (২৮), মিঠুন (১৮), ইসাহাক (৩৫),
রাসেল (১৬), সাদেকুল, মুনতারা (৪৫), নওসাদ (২৫), আঃ হান্নান (৬০), জয়গুন
(৩৫), নুর নেহার (৬০), তৈমুর (২৫), সিংহাড়ী গ্রামের আফসারুল (২৮) ও
সোহেলসহ প্রায় ২০ জন।
ঘটনাসূত্রে জানাযায়, বহরমপুর গ্রামের হবিরর রহমান গত ১৭ দিন আগে
রানীশংকৈল উপজেলার নেকমরদ হাট থেকে দুটি গরু ক্রয় করে। সেই গরু
মঙ্গলবার সকালে স্থানীয় যাদুরানী বাজারে বিক্রি করার জন্য বাড়ী থেকে বের
হয়ে যাদুরানী মহাবিদ্যালয়ের সামনে পৌছালে এ সময় বেতনা ক্যাম্পের
বিজিবি’র সদস্যরা ভারতীয় গরু মনে করে রাস্তা থেকে ভটভটিসহ গরু
দুইটি আটক করে ক্যাম্পের উদ্যোশে রওয়ানা হয়। গরু বহনকারী ভটভটিসহ
গরু দুটি হবিরর রহমানের বাড়ির সামনে পৌছালে হবিবর রহমানের পরিবারের
লোকজন গাড়িটি আটকিয়ে বিজিবি’র কাছে জানতে চায় কি কারণে
তাদের গরু আটক করা হলো। উত্তরে বিজিবি সদস্যরা বলেন ভারতীয় গরু তাই
আটক করা হয়েছে। এসময় গরুর মালিক গরু ক্রয়ের কাগজপত্র বিজিবিকে
দেখায়। তবুও বিজিবি সদস্যরা গরু দিতে অস্বীকৃত জানালে উভয়পক্ষের
মধ্যে বাকবিতন্ড শুরু হয় । এক পর্যায়ে পরিবারের লোকজন বিজিবি’র কাছ
থেকে গরু ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলে। এসময় উপস্থিত বিজিবি সদস্যরা
এলোপাথারি গুলি চালায়। এতে ৩ জন নিহত ও প্রায় ২০জন গুলিবিদ্ধ হয়।
প্রত্যক্ষদর্শী বকুয়া ইউনিয়নের সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আবুল
কাসেম বলেন, আমি বিজিবি সদস্যদের বারবার অনুরোধ করে বলেছি এ
গরুগুলো ওদের ক্রয়কৃত বাড়ির গরু। গরুগুলো ওদের দিয়ে দেন।কিন্তু বিজিবি
সদস্যরা তাদের গরু না দিয়ে গাড়ির উপর থেকেই ওল্টো গ্রামবাসীর উপর
এলোপাথারি গুলি ছুড়তে শুরু করে।

হবিবর রহমানের ছেলে ইয়াকুব আলী বলেন, আমাদের বাড়ির সামনে
ভটভটিটি আটকিয়ে আমাদের ক্রয়কৃত গরু দুটি বিজিবি’র কাছে
ফেরত চাইলে উভয়পক্ষের মধ্যে তর্কবিতর্ক শুরু হয়। একপর্যায়ে বিজিবি
সদস্যরা আমাদের উপর এলোপাথারি গুলি চালায়।

হরিপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডাঃ আব্দুস সামাদ চৌধুরী
বলেন, গুলিবিদ্ধ ১৪ জনের শরীর থেকে গুলি বের করে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে
উন্নত চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ
হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

হরিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আমিরুজ্জামান হতাহতের ঘটনার সত্যতা
নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনাস্থলের পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসা হয়েছে
এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
জেলা প্রশাসক ড. কেএম কামরুজ্জামান সেলিম ও হরিপুর উপজেলা
নির্বাহী কর্মকর্তা এমজে আরিফ বেগ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
ঠাকুরগাঁও ৫০ বিজিবি অধিনায়ক লে. কর্ণেল তুহিন মোঃ মাসুদ বলেন,
ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে উত্তেজিত উপস্থিত জনতাকে বলেন, আমরা কেউ
কারো শত্রু না। বিষয়টি গুরুত্বসহকারে তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে
আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে এবং এ ঘটনায় যারা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে
বিজিবি’র পক্ষ থেকে তাদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে।
অপরদিকে দৈনিক সমকালের জেলা প্রতিনিধি সামশুজোহাকে মুঠো ফোনে
ঠাকুরগাঁও ৫০ বিজিবি অধিনায়ক লে. কর্ণেল তুহিন মোঃ মাসুদ বলেন,
বিজিবি’র একটি পেট্রোল টিম ৪টি গরু সিজ করে ক্যাম্পে ফেরার পথে
চোরাকারবারিরা ও এলাকাবাসী বিভিন্ন দেশীয় অস্ত্র নিয়ে বিজিবি’র
উপরে হামলা চালায়। তাদের অনুরোধ করেও তারা কোন কথা শুনেনি। বরং তারা
উত্তেজিত হয়ে বিজিবি’র অস্ত্র ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় ৪জন
বিজিবি সদস্য আহত হওয়ার পরে কয়েক রাউন্ড ফাকা গুলি করার পরেও পরিবেশ
শান্ত না হওয়ায় বাদ্ধ্য হয়ে গুলাগুলি হয়।